Mon. Nov 18th, 2019

ঝিনাইদহ নিউজ

সবার আগে সর্বশেষ

বেসরকারি সংস্থাগুলো রোহিঙ্গাদের উসকানি দিচ্ছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

1 min read

ঝিনাইদহ নিউজ ডেস্ক: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, বেসরকারি সংস্থাগুলো শর্তের বাইরে গিয়ে রোহিঙ্গাদের সহযোগিতার নামে উসকানি দিচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সরকার।

মন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাদের জাতীয় পরিচয়পত্র নেই। কিন্তু তাদের হাতে হাতে সেলফোন। এগুলো তারা কীভাবে পেল? শুনেছি বিভিন্ন এনজিওরা এগুলো সাপ্লাই দিয়েছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় তিনি সিলেটের সাংবাদিকদের কাছে এ সব কথা বলেন। বঙ্গন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত নারী সমাবেশ ও দোয়া মাহফিলে উপস্থিত হওয়ার প্রাক্কালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথাগুলো বলেন।

এ সময় মন্ত্রী বলেন, বৃহস্পতিবার বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতদের ডেকে সর্বশেষ পরিস্থিতি জানানো হয়েছে। কিন্তু মিয়ানমার সেখানে উপস্থিত হয়নি, অথচ এটি তাদের নিজস্ব বিষয়।

তিনি বলেন, গত ২২ আগস্ট প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বন্ধের আগেই তারা একটি প্রেস রিলিজ দিয়েছে। সেখানে তারা আমাদের দোষারোপ করেছে। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। এমনকি জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থাগুলোকেও মিয়ানমার সেখানে যেতে দিচ্ছে না।

‌‌আমরা বলেছি- ‌পর্যবেক্ষণের ব্যবস্থা করলে মিয়ানমারের গ্রহণযোগ্যতা বাড়বে। তাদের বলেছি, এটি তোমাদের সমস্যা। তোমরা তোমাদের লোকদের ফেরত নেয়ার বিষয়ে বিশ্বাস অর্জন কর। পৃথিবীর সবগুলো দেশকে আমরা বলেছি, মিয়ানমার বাজে একটি প্রেস রিলিজে যে তথ্য দিয়েছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। আর রোহিঙ্গাদের সমস্যা শুধু আমাদের একার নয়, এটি বিশ্ববাসীর সমস্যা। তাই সবার এই বিষয়ে ভূমিকা রাখা উচিত।’ আবদুল মোমেন যোগ করেন।

মন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাদের আমাদের দেশে থাকতে হলে আমাদের নিয়ম মেনে চলতে হবে। আমরা তাদের নিয়ন্ত্রণে রাখব। ব্যত্যয় হলে শাস্তি পাবে। রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লা কোনো অপরাধ করলে শাস্তি পাবে। তবে তাদের মধ্যে একজন নেতা বের হয়ে এসেছে এটি ভালো দিক বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

এর আগে মন্ত্রী সিলেট সদর উপজেলার মোগলগাঁও ইউনিয়ন কমপ্লেক্সে আয়োজিত কয়েকটি প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হিরন মিয়ার সভাপতিত্বে ও সচিব নিহারজিৎ পালের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ সুজাত আলী রফিক, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক জগদীশ চন্দ্র দাস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *