Wed. May 27th, 2020

ঝিনাইদহ নিউজ

সবার আগে সর্বশেষ

করোনা আক্রান্তের তালিকায় যোগ হল ঝিনাইদহ, আক্রান্ত ২

1 min read
ঝিনাইদহে দুই জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। আজ সকাল ১০ টার দিকে সিভিল সার্জন ডা. সেলিনা বেগম খবরটি নিশ্চিত করেছেন। আক্রান্তদের বয়স ৩২ থেকে ৩৫ বছরের মধ্যে।

তাদের মধ্যে সদর উপজেলা শহরের উপ-শহরপাড়ায় এক জন নারী এবং কালীগঞ্জ উপজেলার মোল্লাডাঙ্গা গ্রামে একজন পুরুষ রয়েছে।আক্রান্ত পুরুষ ফরিদপুর উপজেলার ভাঙ্গায় শ্রমিকের কাজ করতো এবং আক্রান্ত নারী গেল ২০ তারিখ ঢাকা থেকে এসেছে।

ঝিনাইদহ সিভিল সার্জন ডা. সেলিনা বেগম জানান, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ব বিদ্যালয় থেকে ১৯ টি নমুনার ফলাফল পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে ২ জন করোনা পজিটিভ এসেছে। এদের মধ্যে সদর উপজেলাতে এক জন নারী এবং কালীগঞ্জ উপজেলাতে একজন পুরুষ রয়েছে। করোনা আক্রান্ত রোগীরা কি অবস্থায় আছে তা দ্রুততার সাথে খোজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে জেলাকে লকডাউন করার জন্য আগেই প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।

এদিকে জেলায় করোনা রোগী শনাক্ত হলেও নিয়ন্ত্রণহীন অবস্থায় চলছে শহরে চলাচলকারী ছোট যানবাহনগুলো। ৭/৮ জন যাত্রী নিয়ে চলাচল করছে ইজি বাইক, রিক্সা-মটর সাইকেলেও একাধিক যাত্রী চলাচল করছে। এগুলো নিয়ন্ত্রণে না থাকা এবং স্বাস্থ্য বিভাগের সুপারিশের পরও জেলা লকডাউন না করায় চরম ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে সচেতন মহল।

সচেতন মহলের মানুষ জানান, শহর এভাবে নিয়ন্ত্রণহীন অবস্থায় চলতে পারেনা। বাজারে, শহরের ছোট যানগুলো কোনটাই নিয়ন্ত্রণে নেই। প্রশাসন কেন এ দিকটা নজর দিচ্ছে না আমাদের বোধগম্য হচ্ছে না।

বিষয়টি নিয়ে সিভিল সার্জন অফিসের করোনা ইউনিটের চিকিৎসক ডা. প্রসেনজিৎ বিশ্বাস পার্থ জানান, সারা দেশে যেভাবে করোনা রোগী সনাক্ত হচ্ছ তাতে এভাবে সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখলে পরিস্থিতি আরো নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে। তাই এখনই সকলের উচিৎ স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা, যথাসম্ভব ঘরে থাকা।
করোনা আক্রান্তের তালিকায় যোগ হল ঝিনাইদহ, আক্রান্ত ২

ঝিনাইদহে দুই জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। আজ সকাল ১০ টার দিকে সিভিল সার্জন ডা. সেলিনা বেগম খবরটি নিশ্চিত করেছেন। আক্রান্তদের বয়স ৩২ থেকে ৩৫ বছরের মধ্যে। তাদের মধ্যে সদর উপজেলা শহরের উপ-শহরপাড়ায় এক জন নারী এবং কালীগঞ্জ উপজেলার মোল্লাডাঙ্গা গ্রামে একজন পুরুষ রয়েছে।আক্রান্ত পুরুষ ফরিদপুর উপজেলার ভাঙ্গায় শ্রমিকের কাজ করতো এবং আক্রান্ত নারী গেল ২০ তারিখ ঢাকা থেকে এসেছে। ঝিনাইদহ সিভিল সার্জন ডা. সেলিনা বেগম জানান, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ব বিদ্যালয় থেকে ১৯ টি নমুনার ফলাফল পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে ২ জন করোনা পজিটিভ এসেছে। এদের মধ্যে সদর উপজেলাতে এক জন নারী এবং কালীগঞ্জ উপজেলাতে একজন পুরুষ রয়েছে। করোনা আক্রান্ত রোগীরা কি অবস্থায় আছে তা দ্রুততার সাথে খোজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে জেলাকে লকডাউন করার জন্য আগেই প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। এদিকে জেলায় করোনা রোগী শনাক্ত হলেও নিয়ন্ত্রণহীন অবস্থায় চলছে শহরে চলাচলকারী ছোট যানবাহনগুলো। ৭/৮ জন যাত্রী নিয়ে চলাচল করছে ইজি বাইক, রিক্সা-মটর সাইকেলেও একাধিক যাত্রী চলাচল করছে। এগুলো নিয়ন্ত্রণে না থাকা এবং স্বাস্থ্য বিভাগের সুপারিশের পরও জেলা লকডাউন না করায় চরম ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে সচেতন মহল। সচেতন মহলের মানুষ জানান, শহর এভাবে নিয়ন্ত্রণহীন অবস্থায় চলতে পারেনা। বাজারে, শহরের ছোট যানগুলো কোনটাই নিয়ন্ত্রণে নেই। প্রশাসন কেন এ দিকটা নজর দিচ্ছে না আমাদের বোধগম্য হচ্ছে না। বিষয়টি নিয়ে সিভিল সার্জন অফিসের করোনা ইউনিটের চিকিৎসক ডা. প্রসেনজিৎ বিশ্বাস পার্থ জানান, সারা দেশে যেভাবে করোনা রোগী সনাক্ত হচ্ছ তাতে এভাবে সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখলে পরিস্থিতি আরো নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে। তাই এখনই সকলের উচিৎ স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা, যথাসম্ভব ঘরে থাকা।

আলিফ আবেদীন গুঞ্জন, ঝিনাইদহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *